রায়পুর উপজেলা আঃলীগ সম্মেলন

সভাপতি পদে মামুন – মিজান, সম্পাদক পদে খোকন-বাবুল প্রচারণায় ।

মোঃওয়াহিদুর রহমান মুরাদ।

রায়পুর উপজেলা আঃলীগ সম্মেলনকে কেন্দ্র করে প্রার্থীদের বিভিন্ন এলাকায় সভাপতি পদে সম্ভাবনা তীব্রতার হচ্ছে অধ্যক্ষ মামুনুর রশিদ – এড. মিজানুর রহমান মুন্সি ও সাঃসম্পাদক পদে ইসমাইল খোকন-রফিকুল হায়দার বাবুল পাঠান ইউনিয়ন, ওয়ার্ড সম্মেলনে বঞ্চিত নেতা – কর্মীদের পক্ষ নিয়ে দাবী – দাওয়ার বিষয়ে সোচ্চার হয়ে প্রার্থী জানান দেওয়ার মধ্য দিয়ে এগিয়ে আছেন। এছাড়াও সভাপতি পদে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলতাফ মাষ্টার ও সাঃসম্পাদক পদে আলোচনায় আছেন পৌর আঃলীগের আহবায়ক কাজী জামশেদ কবির বাক্কী বিল্লাহের নামও উচ্চারিত হচ্ছে।

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলা আওয়ামী লীগ ১৬বছর আগের কমিটি দিয়ে কার্যক্রম চালালেও নেই কোন সমন্বয়। তৈরি হচ্ছে না নতুন কোন নেতৃত্ব। দ্রুত সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি করার দাবি তৃণমূলের নেতাকর্মীদের। উপজেলা আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সম্মেলন হয় ১৬ বছর আগে।২০০৩ সালে তিন বছরের জন্য গঠিত ৬৭ সদস্যের এই কমিটির সভাপতিসহ ইতিমধ্যে ১৬ নেতা মারা গেছেন। প্রায় ১৬ বছর মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি দিয়ে চলছে দলের সাংগঠনিক কার্যক্রম। এতে হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অধিকাংশ নেতাকর্মীরা।দলীয় সূত্র জানায়, ২০১৩ সালে চার বার সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করা হলেও দলীয় কোন্দলের কারণে শেষ পর্যন্ত সম্মেলন করা যায়নি। সর্বশেষ গত বছরের ৪ সেপ্টেম্বর লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভায় বিষয়টি আলোচনায় উঠে আসে। ওই সভায় জেলা কমিটির কয়েকজন সদস্য ক্ষুব্ধ হয়ে রায়পুরে আজীবন সম্মেলন না করার দাবি জানান।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক পদপ্রার্থী সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক পৌর মেয়র রফিকুল হায়দার বাবুল পাঠান বলেন, সম্মেলনের জন্য নেতাকর্মীরা বারবার দাবি তুললেও রহস্যজনক কারণে তা হচ্ছে না। আগের কমিটি বহাল থাকায় তৃণমূলের নেতাকর্মীরা হতাশ হয়ে পড়েছে।

রায়পুর উপজেলা আঃলীগ সভাপতি পদপ্রার্থী এড. মিজানুর রহমান বলেন, অনেক নেতা পৈতৃক সম্পত্তি ছাড়তে রাজি, কিন্তু দলীয় পদ ছাড়তে রাজি নন। দলীয় পদ ‘লাভজনক প্রতিষ্ঠানের পদ পাওয়ার মতোই’ এরকম চিন্তাভাবনা অনেকের। রায়পুরে দলের সম্মেলন না হওয়ায় মেধাবী ও ত্যাগী নেতারা দল থেকে ছিটকে পড়ছেন।

এ ব্যাপারে রায়পুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র হাজী ইসমাইল হোসেন খোকন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আগের চেয়ে দল এখন সুসংগঠিত। এ উপজেলায় সকল কর্মসূচি সু-শৃঙ্খলভাবে পালিত হয়। নানা জটিলতার কারণে সম্মেলন করা সম্ভব হয়নি।
সম্মেলন ও সভাপতি প্রার্থী নিয়ে আলাপচারিতায় রায়পুর উপজেলা আঃলীগ সভাপতি অধ্যক্ষ মামুনুর রশিদ বলেন, সম্মেলনের কাউন্সিলরগন আমাকে যদি চায় তাহলে প্রার্থী হবো। ইউনিয়ন সম্মেলনে আর কয়টি ইউনিয়ন বাকী আছে। সেগুলো শেষ করেই জেলায় আনুষ্ঠানিক ভাবে চিঠি দিয়ে সম্মেলনের তারিখ চাইবো। বাংলাদেশ আঃলীগ বিশাল ঐতিহ্যবাহী দল সেখানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকবে, প্রতিহিংসা নয়।
সম্মেলনের বিষয়ে লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নূরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন বলেন,নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকতেই পারে। নেতাদের তাগিদ দিয়েছি রায়পুর উপজেলায় দ্রুত সম্মেলন করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য ।

Head Of News Alokito News TV Mob:01768127706/01643009156 E-mail:alokitonewstv@gmail.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

০ Comments
scroll to top