টুং টাং শব্দে চৌদ্দগ্রামের কামার পাড়ায় চলছে শেষ মূহুর্তের ব্যস্থতা

এএনটিভি | নিউজ ডেস্ক, প্রকাশিত: ১১. আগস্ট. ২০১৯ , রবিবার

মুহা. ফখরুদ্দীন ইমন, চৌদ্দগ্রাম প্রতিনিধি: বছরের অধিকাংশ সময়ই কামার পাড়ার হাতুড়ীর টু টাং শব্দ খুব একটা শোনা না গেলেও প্রতিবছর ঈদুল আযহাকে (কোরবানীর ঈদকে) কেন্দ্র করে টু টাং শব্দে তাদের উপস্থিতি জানান দেন কামার সম্প্রদায়। আর মাত্র একদিন পরেই পবিত্র ঈদুল আযহা হওয়ায় চাহিদা অনুযায়ী মানুষের দা, বটি, ছুরি শান দেওয়া ও নতুন তৈরিতে যেন দম ফেলার সুযোগ নেই তাদের। এ সময় কামাই-রুজি বেশী হওয়ায় কামার ও কারিগরদের মনেও বেশ আনন্দ লক্ষ্য করা যায়। হাতুড়ী পেটানো আর হাপরে বাতাস দিয়ে আগুনের কাছে বসে থাকা অনেক কষ্টসাধ্য হলেও পণ্য অধিক দামে বিক্রি করতে পারলে অনেকটা দূর হয়ে যায় তাদের সেই কষ্ট। দা, বটি, ধামা ও ছুরি কোরবানীর আবশ্যকীয় আইটেম হওয়ায় সাধারণ মানুষ ছুটছেন কামারদের কাছে। তবে নতুন ছুরি ও অন্যান্য কোরবানীর সরঞ্জামের দাম বেশী হওয়ায় ঘরে থাকা পূরনোগুলোতেই শান দিচ্ছেন বেশিরভাগ মানুষ। এক্ষেত্রে পূরনো গুলোতে শান দেওয়াতেও গত বছরের তুলনায় বাড়তি দাম গুনতে হচ্ছে ক্রেতাদের। চৌদ্দগ্রাম বাজারের ওয়াপদা সড়কে এক সময় সারি সারি কামার দোকান থাকলেও কালের বিবর্তনে এবং বছরের অন্যান্য সময় কাজ না থাকায় এখন মাত্র ২-৩টি দোকান দেখা যায়। অল্প সংখ্যক দোকান হওয়ায় এসব দোকানে সাধারণ ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। এক্ষেত্রে অনেক দোকানে সময়মতো সরঞ্জাম না দিতে পারার ঘটনাও ঘটছে বলে জানান কয়েকজন ক্রেতা। উপজেলার গুনবতী, ধোড়করা, মুন্সিরহাট, কাশিনগর, মিয়াবাজারসহ গুরুত্বপূর্ণ বাজারগুলোতেও কামার ও কারিগরদের ব্যস্থতা চোখে পড়ার মতো। চৌদ্দগ্রাম বাজারের কামারপাড়ার এক কারিগর জানান, পর্যাপ্ত কাজ না থাকায় বছরের অধিকাংশ সময় বসে থাকতে হয়। তাছাড়া কারিগর সংকট এর পাশাপাশি বর্তমানে কয়লা এবং লোহার দামও বেশি। তাই কোরবানীর ঈদেই দা, বটি এবং ছুরি শানের দামটা একটু বেশি থাকে। সে আরও জানায়, বছরের অন্যান্য সময় কাজ না থাকায় কামাররা অন্যান্য পেশায় জড়িয়ে পড়ছে। এসময় কামার পেশাই এক সময় বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।