নোয়াখালীতে ‘স্পিরিট পানে’ সাতজনের মৃত্যু।আটক দুই।

এএনটিভি | নিউজ ডেস্ক, প্রকাশিত: ২৮. সেপ্টেম্বর. ২০১৯ , শনিবার

মোঃইব্রাহিম নোয়াখালী প্রতিনিধি।
নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে হোমিও দোকানের স্পিরিট পান করে সাতজনের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। নিহতরা হলেন-উপজেলার মোহাম্মদনগর গ্রামের মৃত ফয়েজ আহমদের ছেলে মহিনউদ্দিন (৪০), বসুরহাট পৌরসভা ৮নং ওয়ার্ডের বাঁশ ব্যাপারী বাড়ির নুর নবী মানিক (৫০), পৌরসভা ৮নং ওয়ার্ডের ক্ষিরত মহাজন বাড়ির অনিল রায়ের ছেলে রবি লাল রায় (৫৭), চরকাঁকড়া ইউনিয়নের টেকের বাজার এলাকার আবদুল খালেক (৭২), সিরাজপুর ইউনিয়নের মতলব মিয়ার বাড়ি সংলগ্ন সবুজ (৬০)।
শুক্রবার বিভিন্ন কোমল পানীয়ের সঙ্গে স্পিরিট পান করে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আরো অন্তত ছয়জনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল ও ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।
স্থানীয়দের অভিযোগ, বসুরহাট বাজারের রফিক হোমিও হল দোকানের স্পিরিট পান করে তার মারা যায়।স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পুলিশ জানার আগেই মারা যাওয়া তিনজনের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। তবে আরো দুজনের দাফন এখনো সম্পন্ন হয়নি। পরে পুলিশ খবর পেয়ে রবি লাল রায়ের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে এবং আরো একজনের লাশ উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।এ ঘটনায় স্পিরিট বিক্রেতার ছেলে প্রিয়মকে আটক করে পুলিশ। তবে স্পিরিট বিক্রেতা ডা. জায়েদ গাঢাকা দিয়েছেন।স্থানীয়দের অভিযোগ, এ দোকানের মালিক জায়েদ ও তার ছেলে প্রিয়ম অনেক বছর ধরে অনেকটা খোলামেলাভাবে এ হোমিও হলে স্পিরিটসহ বিভিন্ন নেশাজাতীয় দ্রব্য বিক্রি করে আসছেন।কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি আরিফুর রহমান পাঁচজনের মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, একাধিক সূত্রে বিভিন্ন স্থানে স্পিরিট পানে পাঁচজনের মৃত্যুর খবর শুনে তাদের বাড়ি পরিদর্শন করি। ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আরো একজনের লাশ উদ্ধারের চেষ্টা করছে পুলিশ। এর আগে তিনজনের দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে।